Home » অনলাইন মার্কেটিং এর ১২টি সুবিধা (যা অন্যদের থেকে আপনাকে এগিয়ে রাখবে)
নিবন্ধ

অনলাইন মার্কেটিং এর ১২টি সুবিধা (যা অন্যদের থেকে আপনাকে এগিয়ে রাখবে)

অনলাইন মার্কেটিং এর সুবিধা

বর্তমান ব্যবসায়িক জগতে অনলাইন মার্কেটিং এর জনপ্রিয়তা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। আর এটা সহজেই বোঝা যায় যে, অনলাইন মার্কেটিং এর সুবিধা অন্য সকল মার্কেটিং কৌশলের চাইতে বেশি বলেই এর জনপ্রিয়তা এত দ্রুত বৃদ্ধির পেয়েছে।

বর্তমানে উন্নত দেশগুলোতে মার্কেটিং ব্যবস্থা বহুলাংশেই অনলাইন জগতের উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে। আর এর মিষ্টি ফলও তারা পাচ্ছে।

২০১৯ সালে বিশ্বব্যাপি ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের বাজার ছিলো ৩০০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। ২০২১ সালে এই বাজার বৃদ্ধি পেয়ে ৩৫০ বিলিয়ন ডলারে পৌছেছে। ডিজিটাল মার্কেটিং জগতের যে হারে বৃদ্ধি ঘটছে তাতে ২০২৫ সালের মধ্যে বিশ্বব্যাপি ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের বাজার প্রায় ৪০০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে পৌছে যাবে বলে ধারনা করা হচ্ছে। (অনলাইন মার্কেটিং মানেই ডিজিটাল মার্কেটিং তবে ডিজিটাল মার্কেটিং মানেই অনলাইন মার্কেটিং নয়!)

তবে আমাদের দেশে অনলাইন মার্কেটিং এখনও ততটা প্রসার লাভ করেনি এবিষয়ে মানুষের অজ্ঞতার কারনে। তবে মানুষের মাঝে এবিষয়ে সচেতনতা ধীরগতিতে হলেও বৃদ্ধি পাচ্ছে। অনেকেই এখন অনলাইন ব্যবস্থাকে কাজে লাগিয়ে তাদের মার্কেটিং কার্যক্রম পরিচালনা করছে। আপনিও যদি অনলাইন ব্যবস্থাকে কাজে লাগিয়ে মার্কেটিং কার্যক্রম পরিচালনা করতে আগ্রহি হয়ে থাকেন তাহলে এর সুবিধাগুলো জেনে নিন।

অনলাইন মার্কেটিং এর সুবিধা বা উপকারিতা:

বর্তমান আধুনিক প্রযুক্তি নির্ভর পৃথীবিতে অনলাইনে মার্কেটিংয়ের উপকারিতা বলে শেষ করা যাবেনা। বিভিন্ন ক্ষেত্রে এর বিভিন্ন ধরনের উপকারিতা রয়েছে তবে এখানে আমি আপনাদের জন্য প্রধান কিছু উপকারি দিক তুলে ধরছি।

সঠিক লক্ষ্য নির্ধারন: প্রথমত অনলাইন মার্কেটিং এর সুবিধা হলো এর মাধ্যমে সঠিক লক্ষ্য নির্ধারন করে প্রচারনা চালানো যায়। আপনি ঠিক যাদের উদ্দেশ্যে প্রচারনা চালাতে চান তাদের উদ্দেশ্যেই প্রচারনা চালাতে পারবেন।

বিষয়টি আরেকটু পরিষ্কার করে বলছি। যেমন ধরুন আপনি ফেয়ার এন্ড লাভলীর মতো কোন প্রসাধনী সামগ্রির প্রচারনা চালাতে চান যেটা সাধারনত শুধু মেয়েরাই ব্যবহার করে। এখন আপনি যদি টিভিতে আপনার সেই প্রসাধনী সামগ্রিটির বিজ্ঞাপন প্রচার করেন তাহলে সেই বিজ্ঞাপন ছেলেরা দেখবে নাকি মেয়েরা দেখবে তা আপনি নিয়ন্ত্রন করতে পারবেননা। ছেলে বা মেয়ে যারাই আপনার বিজ্ঞাপন দেখুকনা কেন আপনাকে বিজ্ঞাপনের সম্পূর্ন টাকাই পরিশোধ করতে হবে। যদিও ছেলেরা বিজ্ঞাপনটি দেখলে আপনার কোন লাভ নেই কারন ছেলেরা আপনার প্রসাধনী সামগ্রিটি ক্রয় করবেনা।

কিন্তু অনলাইনে বিজ্ঞাপন প্রচার করলে আপনার বিজ্ঞাপনটি ছেলেদের দেখাতে চান নাকি মেয়েদের দেখাতে চান নাকি উভয়কেই দেখাতে চান তা আপনি নির্ধারন করে দিতে পারবেন। এতে করে অপ্রয়োজনীয় লোকদের সামনে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে আপনার টাকা অপচয় হবেনা বরং সঠিক লোকদের সামনে আপনার বিজ্ঞাপনটি প্রচার করতে পারবেন।

শুধু এটাই নয়, অনলাইনে আপনি বয়স বা এলাকা নির্ধারন করেও আপনার বিজ্ঞাপন প্রচার করতে পারবেন। যা দূরদর্শন, বেতার বা সংবাদপত্রের মাধ্যমে সম্ভব নয়।

সুতরাং বুঝতেই পারছেন, অনলাইন মার্কেটিং এর মাধ্যমে সঠিক লক্ষ্য নির্ধারন করে প্রচারনা চালানো বহুগুন সহজ।

গ্রাহকের সাথে সরাসরি যোগাযোগ: অনলাইনে প্রচারনা চালানোর আরেকটি বড় উপকারিতা হলো গ্রাহকের সাথে সরাসরি যোগাযোগের সুযোগ।

ফেসবুক, টুইটার, লিংকডইন, স্ন্যাপচ্যাট, পিনারেস্ট, ইন্সট্রাগ্রাম সহ যেকোন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম অথবা ইমেইল মার্কেটিংয়ের মতো অনলাইন যোগাযোগ ব্যবস্থাকে কাজে লাগিয়ে মার্কেটিং করলে আপনি গ্রাহকের সাথে সরাসরি যোগাযোগের সুযোগ পাবেন।

গ্রাহক আপনাকে যেকোন প্রশ্ন করতে পারবে এবং আপনি তাদের প্রশ্নের উত্তর দিতে পারবেন। ফলে গ্রাহকের সাথে আপনার দৃড় বন্ধন সৃষ্টি হবে।

প্রচার প্রচারনার ব্যাক্তিগতকরন: লক্ষ্যস্থীর করা ব্যাক্তিদের কাছে আপনার বিজ্ঞাপন বেশি গ্রহনযোগ্য করে তুলতে প্রচার কার্যক্রমকে ব্যাপকভাবে ব্যাক্তিগতকরন করার সুযোগ ও ব্যবস্থা অনলাইন মার্কেটিংয়ে রয়েছে। যে ব্যাক্তির জন্য যে ধরনের প্রচার কৌশল বা বিজ্ঞাপন বেশি উপযোগি তার সামনে ঠিক সেই বিজ্ঞাপনটিই তুলে ধরার সুযোগ অনলাইনে রয়েছে। ট্রাকিং কুকি, সার্চ হিস্টোরি, আইপি এড্রেস- ইত্যাদির সাহায্যে তথ্য নিয়ে এসব করা যায় খুব সহজেই।

যেকোন সময় পরিবর্তনযোগ্য: অনলাইনে প্রচারনা চালানোর আরেকটি উপকারি দিক হলো এটি অনেক ক্ষেত্রেই যেকোন সময় পরিবর্তনযোগ্য।

প্রচার কার্য চলার মাঝপথে কোন কিছু পরিবর্তন করার প্রয়োজন হলে অনলাইন মার্কেটিংয়ের ক্ষেত্রে তা সহজেই পরিবর্তন করা যায়। যেমন ধরুন আপনি গুগল এডসেন্স, মিডিয়া ডট নেট বা ফেসবুকের মাধ্যমে বিশ্বের ১০টি দেশে আপনার একটি পন্যের প্রচারনা চালাচ্ছেন। আপনি চাইলে যেকোন দিন ১০ টি দেশের মাঝ থেকে ২টি দেশে প্রচারনা চালানো বাদ দিয়ে দিতে পারেন বা নতুন ২টি দেশ অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন।

একইভাবে বয়স, লিংগ, ভাষা, সময় ইত্যাদি প্রয়োজন মতো পরিবর্তন করে প্রচারনা চালাতে পারেন।

প্রতিদিনের ফলাফল দেখার সুযোগ: বর্তমানে সব বড় ও মাঝারি অনলাইন মার্কেটিং সেবা প্রদানকারি প্রতিষ্ঠানগুলো মাধ্যমে প্রচারনা চালালে আপনি আপনার প্রচারনার ফলাফল বা প্রচারনা সম্পর্কিত তথ্য নিজেই দেখতে পাবেন। আমার মতে অনলাইন মার্কেটিং এর সুবিধা সমূহের মধ্যে এটি অন্যতম।

আপনি রাস্তায় একটি বিলবোর্ড লাগালে সেই বিলবোর্ডটি কতজন দেখেছে, যারা দেখেছে তাদের বয়স কেমন হতে পারে, কতজন ছেলে আর কতজন মেয়ে আপনার বিলবোর্ডটি দেখেছে এধরনের কোন তথ্যই আপনি জানতে পারবেন না। তবে অনলাইনে মার্কেটিং করলে এসব তথ্য জানার সুযোগ আপনার রয়েছে।

আপনার বিজ্ঞাপনটি দিনে কতবার দেখা হয়েছে, সপ্তাহে বা মাসে কতবার, কতজন মানুষ দেখেছে সব ফলাফল আপনি জানতে পারবেন।

ঠিক একইভাবে যদি আপনি দেশব্যাপি বা বিশ্বব্যাপি আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রচারনা চালান তবে আপনার দেশের কোন অন্চল থেকে কতজন মানুষ বা বিশ্বের কোন দেশ থেকে কতজন মানুষ আপনার বিজ্ঞাপনটি দেখেছে সেই তথ্যও আপনি পেয়ে যাবেন।

এসকল তথ্য আপনাকে আরো ভালোভাবে মার্কেটিং পরিকল্পনা করতে সাহায্য করবে এবং আপনার কৌশল সফল নাকি ব্যার্থ হচ্ছে সেটিও আপনি বুঝতে পারবেন এবং সে অনুযায়ি পরবর্তি পরিকল্পনা করতে পারবেন।

দিন বা রাত সহ যেকোন আবহাওয়ায় কার্যকর: অনলাইন বা ডিজিটাল মার্কেটিং এর সুবিধা হলো এটি দিনে বা রাতে শীত, গ্রীষ্ম বা বর্ষার দিনে- সবসময়ই কার্যকর।

আপনি যদি বিলবোর্ড বা ব্যানার স্থাপন করেন তবে সেটি হয়তো রাতের আধারে দেখা নাও যেতে পারে। তবে অনলাইনে বিভিন্ন ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপন প্রচার করলে তা এই সমস্যার আওতামুক্ত থাকবে। আবার ধরুন আপনি পোস্টার লাগালে তা বৃষ্টিতে ভিজে নষ্ট হয়ে যেতে পারে কিন্তু অনলাইনে বিজ্ঞাপন প্রচার করলে বৃষ্টির দিনেও কার্যকর থাকবে।

একইভাবে প্রচন্ড গরমে বা বর্ষার মৌসুমে সাধারন পদ্ধতিতে প্রচার কার্য চালাতে আপনার যথেস্ট সমস্যা হবে এবং আপনি কাংক্ষিত ফল পাবেননা। তবে অনলাইনে প্রচারনা চালালে আপনি এসব ঝামেলা থেকে মুক্ত থাকবেন।

সুতরাং এটা নিশ্চিত যে অনলাইনে প্রচারনা চালালে তা দিন রাত বা যেকোন আবহাওয়ায় অধিক কার্যকর।

বিশ্বব্যাপি প্রচার: বিশ্বব্যাপি প্রচারনা চালাতে চাইলে ডিজিটাল পদ্ধতিতে মার্কেটিংই হবে সেরা উপায়। আসলে শুধু সেরা উপায় বললে ভুল হবে, বরং বলতে হবে একমাত্র উপায়! কারন অন্য কোন উপায়ে বিশ্বব্যাপি প্রচারনা চালানো সম্ভব নয়।

এক দেশের সীমানা পেরিয়ে আরেক দেশে ঢুকে মার্কেটিং করা খুবই কঠিন কাজ যা ছোট বা মাঝারি প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য অসম্ভবই বলা চলে। তবে এই কাজটিকেই সহজ করে দিয়েছে বর্তমান অনলাইন প্রচার কৌশল। অনলাইনের মাধ্যমে সহজেই দুনিয়ার যেকোন দেশে যোগাযোগ করা যায়, যেকোন দেশে প্রচারনা চালানো যায়।

তুলনামূলক কম খরচ: অনলাইন মার্কেটিং এর সুবিধা হলো, প্রচলিত সনাতন মার্কেটিং কৌশলগুলোর বিপরীতে অনলাইনে মার্কেটিং করলে এর খরচ হয় তুলনামূলক অনেক কম।

আপনি প্রচলিত পদ্ধতিতে ১০ লাখ মানুষকে লক্ষ্য করে প্রচারনা চালালে যে পরিমান খরচ হবে অনলাইনে ১০ লাখ মানুষকে লক্ষ্য করে প্রচারনা চালালে খরচ হবে তার চাইতে অনেক কম। কিছু কিছু ক্ষেত্রে খরচ হবে অর্ধেকেরও কম। ফলে আপনি সমপরিমান টাকায় অনেক বেশি মানুষের কাছে প্রচারনা চালাতে পারবেন।

কম পরিশ্রম: অনলাইনে প্রচার প্রচারনা চালাতে তেমন কোন পরিশ্রম করতে হয়না। ঘরে বা কার্যালয়ে বসেই খুব সহজে দেশব্যাপি বা বিশ্বব্যাপি প্রচারনা চালানো যায়।

বিশাল কর্মী বাহিনীর প্রয়োজন নেই: অনলাইনে মার্কেটিংয়ের জন্য বিশাল কর্মী বাহিনীর প্রয়োজন হয়না। বলতে গেলে প্রায় সব কিছুই নিজেই করা যায়। আর যদি খুবই বড় ধরনের প্রকল্প হয়ে থাকে তবুও ২/৩ জন কর্মীর মাধ্যমেই তা নিয়ন্ত্রন করা যায়। ফলে একদিকে যেমন অর্থ সাশ্রয় হয় পাশাপাশি বেশি কর্মী নিয়ন্ত্রনের ঝামেলা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

বেশি আকর্ষনীয়: অনলাইনে যেসব বিজ্ঞাপন প্রচার করা হয় তা সব সময়ই বেশ আকর্ষনিয় হয়ে থাকে। কারন আপনি আপনার ইচ্ছা বা প্রয়োজনমতো অডিও, ভিডিও, ছবি বা এনিমেশন বা অন্য যেকোন কনটেন্টের মাধ্যমে আকর্ষনীয় ভাবে আপনার বিজ্ঞাপন তৈরি করতে পারবেন।

নানা ধরনের কনটেন্টের সংমিশ্রনে আপনার বিজ্ঞাপনটি হয়ে উঠবে খুবই আকর্ষনীয়। ফলে তা সহজেই মানুষের মন জয় করতে পারবে। এতে করে আপনার প্রতিষ্ঠান বা পন্য সম্পর্কে মানুষের মাঝে নিজের অজান্তেই এক ধরনের ইতিবাচক ধারনা সৃষ্টি হবে।

অনলাইন মার্কেটিং এর চাহিদা দিন দিন বাড়ছে

সারা পৃথীবিতেই অনলাইনে মার্কেটিং করার প্রবনতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই সময়ের সাথে নিজেকে খাপ খাইয়ে নিতে আমাদের সকলের উচিত অনলাইন জগতে নিজের প্রতিষ্ঠানের প্রচারনা বৃদ্ধি করা।

বর্তমানে সারা পৃথীবিতে মোবাইল, কম্পিউটার তথা ইন্টারনেটের ব্যবহার অকল্পনীয় ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। মানুষ দীর্ঘ সময় অনলাইনে কাটাচ্ছে। ফলে সেই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে নিজেদের প্রচারনা বৃদ্ধি করা সকল ব্যবসায়িদের জন্য একরকম বাধ্যতামুলক হয়ে উঠেছে। যারা সময়ের সাথে নিজেকে খাপ খাওয়াতে পারবেনা তারা প্রতিযোগিতা থেকে ছিটকে পড়বে।

সুতরাং এই বাড়তি চাহিদাকে কাজে লাগান। শুধু টিকে থাকা নয়, বরং রাজত্ব করুন!

আপনি চাইলে এটিও পড়তে পারেন মার্কেটিং করার ২০ কৌশল

অনলাইন মার্কেটিং এর সুবিধা সমূহতো জানলেন। এবার আপনি নিজেই ভেবে দেখুন এসব সুবিধা কি প্রচলিত সাধারন পদ্ধতিতে প্রচার করলে আপনি পাবেন? নষ্ট করার মতো সময় একদম নেই। সিদ্ধান্ত গ্রহন করুন আপনি কোন পথে যাবেন। কোন মতামত থাকলে কমেন্ট করে জানতে পারেন। এমন আরো শত শত তথ্যবহুল লেখা পড়তে নিয়মিত আমাদের ওয়েবসাইট ভ্রমন করুন। আপনার নিজের কোন লেখা প্রকাশ করতে চাইলে আমাদের ওয়েবসাইটে একাউন্ট করে লেখা প্রকাশ করতে পারেন। অনলাইন মার্কেটিংয়ের একটি সহজ পদ্ধতি হলো গেস্ট পোস্টিং। Fancim.com এ গেস্ট পোস্টিং করে আপনি কিভাবে আপনি মার্কেটিং করতে পারেন তা জানতে চাইলে আমাদের ওয়েবসাইটের এই পেজে ভ্রমন করুন।

TOP POST OF TODAY (আজকের জনপ্রিয় পোস্ট):

বাংলাদেশীদের জন্য সেরা অ্যাপ

BD MEDIA MATE APP SCREENSHOT

TOP POSTS OF OUR WEBSITE (আমাদের ওয়েবসাইটের জনপ্রিয় পোস্টগুলি):

BEST APP FOR US PEOPLE

US MEDIA MATE APP