নিবন্ধ

অল্প পুজিতে লাভজনক ব্যবসা (৭০ টি ধারনা)

অল্প পুজিতে লাভজনক ব্যবসা , নতুন ব্যবসা আইডিয়া , ক্ষুদ্র ব্যবসা

অল্প পুজিতে লাভজনক ব্যবসা করে নিজে সাবলম্বী হওয়ার পাশাপাশি দ্রুত অর্থনৈতিক অগ্রগতি অর্জন করা সম্ভব । অল্প পুজিতে কি কি লাভজনক ব্যবসা করা যায় সেগুলো তুলে ধরতেই এই লেখা। এই লেখায় আমরা FANCIM.COM এর পাঠকদের জন্য অল্প পুজিতে লাভজনক ব্যবসা সম্পর্কিত বেশ কিছু ধারনা তুলে ধরবো যেগুলো আমরা চাইলে খুব সহজেই করতে পারি । চলুন তাহলে ব্যবসার ধারনাগুলো দেখে নেয়া যাক..

অল্প পুজিতে লাভজনক ব্যবসা সম্পর্কিত ধারনা

* মুদি দোকান
মুদি দোকান আমাদের দেশে একটি বহুল প্রচলিত ও সহজ ব্যবসা । পাশাপাশি এটি একটি অল্প পুজিতে লাভজনক ব্যবসা । তবে সত্য কথা বলতে আমাদের দেশে বর্তমানে অনেক জায়গায় প্রয়োজনের চেয়ে বেশি মুদি দোকান হয়ে গিয়েছে । যেই বাজারে ৫টা মুদি দোকান থাকলেই চলে সেই বাজারে ১৫টা মুদি দোকান হয়ে গেছে ফলে কোন দোকানদারই তেমন লাভ করতে পারছে না । আর বাকি দিলে মুদি ব্যবসায় ঝুকি বহুগুন বেড়ে যায় । তাই এই বিষয়গুলো খেয়াল রাখা দরকার ।

* পাপোশ তৈরি
* কলম তৈরি
* খাতা তৈরি
* ডায়েরি তৈরি
ডায়েরি একটি বহুল ব্যবহৃত সামগ্রী । এটিও এক ধরনের খাতার মতো । তবে একটু ভালো মানের কাগজ দিয়ে এবং সুন্দর ও আকর্ষনীয় মলাট সংযোজনের মাধ্যমে ডায়েরি তৈরি করা হয় । খাতার তুলনায় অল্প একটু বেশি খরচ করেই কয়েকগুন বেশি দামে ডায়েরি বিক্রয় করা সম্ভব ।

* ঝাড়ু তৈরি
* হাত পাখা তৈরি
* বিভিন্ন শোপিছ তৈরি
* দরজা/জানালার পর্দা তৈরি
* নকশিঁ কাথা তৈরি
* স্বল্প মূল্যের টিশার্ট বা শার্ট তৈরি
* পুরাতন জামা-কাপড় বিক্রি
অনেক এলাকাতেই ভ্যানগাড়ি অথবা ফুটপাথে পুরাতন জামা কাপড় বিক্রি করা হয় । স্বল্প আয়ের মানুষদের কাছে এসব জামা কাপড়ের বেশ ভালো চাহিদা রয়েছে ।

* মানিব্যাগ তৈরি
* কমোড়ের বেল্ট তৈরি
* স্কুল ব্যাগ তৈরি
স্কুল ব্যাগ তৈরি করে বাজার ধরতে পারলে সাফল্য নিশ্চিত বলা যায় । স্কুল ব্যাগ তৈরি করা অল্প পুজিতে লাভজনক ব্যবসা । বাংলাদেশে স্কুল ব্যাগের প্রচুর চাহিদা রয়েছে । প্রতি বছর কয়েক লক্ষ পিছ স্কুল ব্যাগ বিক্রি হয় । যার বেশিরভাগই বিদেশ থেকে আমদানি করা হয় । ফলে কোটি কোটি টাকা বিদেশিদের পকেটে চলে যায় । তাই একটু ভালো মানের এবং সুন্দর ডিজাইনের স্কুল ব্যাগ তৈরি করতে পারলে একদিকে নিজের ভাগ্য বদলাবে পাশাপাশি দেশের ও উপকার হবে ।

* বাজারের ব্যাগ তৈরি
* ভায়া / লাইফ জ্যাকেট তৈরি
* ঠোঙ্গা তৈরি
* টুপি তৈরি
* তসবিহ তৈরি
* জায়নামাজ তৈরি
আমাদের দেশে প্রচুর পরিমান জায়নামাজ বিদেশ থেকে আমদানী করা হয় । অথচ এটা এমন আহামরি, কঠিন কিছু নয় যে দেশে বানানো যাবে না । দেশেই এগুলো তৈরি করে অল্প পুজিতে লাভজনক ব্যবসা করতে পারেন ।

* রুলাম তৈরি
* মাস্ক তৈরি
* জুতা, স্যান্ডেল তৈরি

জুতা বা স্যান্ডেল এমন একটি পন্য যার চাহিদা নিয়ে কোন চিন্তা নেই । রেক্সিনের কমদামি জুতা বা স্যান্ডেল তৈরি করে ভালো আয় করতে পারেন । ইন্টারনেট থেকে সার্চ করে আরো বিস্তারিত জানতে পারবেন এই বিষয়ে ।

* মোজা, সেন্টু গেন্জি ইত্যাদি তৈরি
* ক্যাপ/হ্যাট তৈরি
* মোবাইলের কভার তৈরি
মোবাইলের কভার তৈরি হতে পারে অল্প পুজিতে লাভজনক ব্যবসা । এখন সবার হাতে হাতে মোবাইল । পছন্দের মোবাইলটিকে যত্নে রাখতে প্রায় সবাই কভার ব্যবহার করে থাকে । মোবাইলের কভার তৈরি করে আপনিও অল্প পুজিতে লাভজনক এই ব্যবসা করতে পারেন ।

* ফেলে দেওয়া কাঠের টুকরা দিয়ে চাবির রিং তৈরি
* আন্ডারওয়্যার তৈরি
* বাচ্চাদের খেলনা তৈরি
আমাদের দেশে খেলনার ব্যবসাটি প্রায় পুরোটাই আমদানি নির্ভর । শুধু খেলনা বিক্রয় করেই চীন প্রতি বছর কয়েক হাজার কোটি টাকা আমাদের কাছ থেকে নিয়ে যাচ্ছে । গাড়ি, পিস্তল, পুতুল সহ বিভিন্ন খেলনা তৈরি করে আপনিও বেশ ভালো ব্যবসা করতে পারেন ।

* স্কেল তৈরি
* পরিক্ষার হার্ডবোর্ড তৈরি
* ফাইল তৈরি
* সাইকেল ভাড়া দেয়ার ব্যবসা
* মোবাইলে গান, ছবি, গেমস, এপস লোডের ব্যবসা
* ফ্লেক্সিলোডের ব্যবসা
* ভিডিও গেমসের দোকান
* সেলুনের ব্যবসা
* লন্ড্রী শপ/ কাপড় ইস্ত্রির দোকান
* বিউটি পার্লারের ব্যবসা
* বাসা বাড়ি থেকে ময়লা সংগ্রহ করার ব্যবসা
* অফিস বা কল- কারখানায় যথাসম্ভভ কম দামে ঘরোয়া খাবার সরবরাহের ব্যবসা
* চা- পাণের দোকান
* পুরি/ সিংগারা/ পিয়াজু/ সমোচার দোকান
* হালিম/ নুডলস/ ফুচকা/ চটপটির দোকান
* ভ্যানগাড়িতে সবজি বিক্রি
* ভ্যানগাড়িতে বাচ্চাদের খেলনা+ প্লাস্টিকের ছোটখাটো জিনিসপত্র বিক্রি
* ভ্যানগাড়িতে করে বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ঘুরে কমদামি বা অল্প রিজেক্টেড শার্ট/ প্যান্ট বা অনান্য পোশাক বিক্রি
* ভ্যানগাড়িতে করে ছোট খাটো গৃহস্থলীর ব্যবহার্য জিনিসপত্র ( চামুচ, বাটি, চটি, ঢাকনা ইত্যাদি) বিক্রি
* কবুতর পালন
* কোয়েল পালন
* মৌমাছি পালন
* মাশরুম উৎপাদন
* ছোট আকারের ছাগলের খামার
* হাঁস- মুরগীর খামার

হাস মুরগির খামারের ধারনাটি পুরানো হলেও এটি একটি ভালো ব্যবসা । অপচয় রোধ করে যথা সম্ভব কম খরচে খামারে হাস মুরগি পালন করে সেগুলো বিক্রি করে ভালো আয় করা সম্ভব । আর আমি মনে করি যাদের পর্যাপ্ত জমি রয়েছে তারা ব্যবসার উদ্দেশ্যে না হলেও অন্তত পারিবারিক চাহিদার জন্য হলেও কয়েকটি হাস মুরগি পালন করা উচিত ।

* বাজারে মুরগি+ ডিম বিক্রির দোকান
* রিকশার বডি ও পার্টস কিনে রিকশা তৈরি

* রিকশার বিভিন্ন পার্টস কিনে এবং বডি বানিয়ে বা কিনে নিয়ে সেগুলো সংযুক্ত করে রিক্সা বানিয়ে বিক্রি করা যায় । এটি একটি খুবই লাভজনক ব্যবসা । আমাদের দেশে রিক্সার প্রচুর চাহিদা । তবে এর জন্য রিক্সা সংযুক্ত করার মতো কারিগরি জ্ঞান থাকতে হবে । আমাদের এলাকায় দুই ভাই মিলে এরকম একটি দোকান পরিচালনা করে । তারা এভাবে রিক্সা তৈরি করে বিক্রি করে ।

* সাইকেলের বডি তৈরি করে সাইকেল বিক্রি

এই পক্রিয়াটাও রিকশার মতো । আলাদা বডি ও আনুসাংগিক যন্ত্রপাতি কিনে সেগুলো জোড়া দিয়ে সাইকেল তৈরি করে বিক্রি করা যায় ।

* মটর সাইকেল ভাড়া দেয়ার ব্যবসা
* স্টেশনারি পন্যের দরকার
* মোমবাতি তৈরির ব্যবসা
* কয়েল তৈরির ব্যবসা
* ডিটারজেন্ট তৈরির ব্যবসা
* সবজি উৎপাদন

সবজি উৎপাদন করে ব্যবসায়িক ভাবে অনেকেই সাবলম্বি হয়েছে । ব্যবসায়িক উদ্দেশ্য ছাড়াও অল্প পরিমানে সবজি চাষ করে পরিবারের চাহিদা পুরন করতে পারেন । এতে টাকাও বাচবে আবার কিটনাশক যুক্ত সবজি খাবার হাত থেকেও রক্ষা পাবেন ।

* কফি শপ/ জুস বার
* ফল বিক্রির ব্যবসা
* গাড়ি মেরামত এবং ধোয়ার গ্যারেজ
* বাচ্চাদের ডে কেয়ার সেবা প্রদান ব্যবসা
* কোচিং সেন্টার

* প্লাইবোর্ডের আসবাবপত্র তৈরি

প্লাইউডের আসবসবপত্র তৈরির ব্যবসা করতে পারেন । এটি একটি অল্প পুজিতে লাভজনক ব্যবসা । প্লাইউডের আসবাবপত্র তৈরি করা খুবই সহজ এবং আনুসাঙ্গিক যন্ত্রপাতিও খুব কম দরকার হয় । প্লাইউডের আসবাবপত্রের ভিতরে মূলত পড়ার টেবিল, কম্পিউটার টেবিল এবং শোকেজ বানানো খুবই সহজ এবং খরচও কম । আমি নিজের জন্য কয়েকটি শোকেজ এবং টেবিল বানাতে গিয়ে সামনে দাড়িয়ে থেকে পুরো পক্রিয়াটি লক্ষ করেছি । বাজার থেকে প্লাইবোর্ড কিনে এনে সেগুলোকে সাইজ মতো কেটে শুধু আঠা ও স্ক্রু দিয়ে ভালোমতো জোড়া দিলেই ব্যবহার উপযোগি হয়ে যায় । কাঠের মতো ঘষতে হয়না, বার্নিশ করতে হয়না । কয়েকদিন লক্ষ্য করলেই যে কেউ শিখতে পারবে ।

* মৌমাছি পালন

ব্যবসাটির একদিকে যেমন খরচ কম আবার অন্যদিকে মধুর চাহিদা নিশ্চয় কাউকে বলে বোঝাতে হবেনা । আপনি ভেজাল না মিশিয়ে খাটি মধু বিক্রি করলে এক ক্রেতাই আপনার কাছ থেকে বারবার মধু কিনবে । ক্রেতার কোন অভাব হবেনা । দামও ভালো পাবেন । আর এই ব্যবসাটাও বলতে গেলে অনেকটাই অপ্রচলিত । তাই প্রতিযোগিতা নেই । মৌমাছি পালনের মাধ্যমে মধু উৎপাদন সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে ইন্টারনেটে সার্চ করুন ।

অল্প পুজিতে লাভজনক ব্যবসা কেন করবেন ?

আমাদের দেশে বেকার সমস্যা একটি মস্ত বড় সমস্যা । বেকারত্বের অভিশাপে বহু যুবক-যুবতীর জীবন দূর্বিষহ হয়ে উঠেছে । কিন্তু চাকরি করে বেকারত্ব কমানোটা আমাদের দেশের জন্য খুবই কঠিন হবে আর সম্পুর্ন নির্মূল করাতো অসম্ভব বিষয় । তাই ব্যবসা করে আত্বকর্মসংস্থানের মাধ্যমেই আমাদের জীবনকে এগিয়ে নিতে হবে ।

অনেকে চাকরি নেয়ার জন্য মোটা অংকের ঘুষ দিয়ে থাকে । অথচ ঐ টাকা ঘুষ না দিয়ে সেটা দিয়ে ব্যবসা করলেও ভালো আয় করা সম্ভব ।
অথচ অনেক সময় আমরা মনে করি টাকা উপার্জন করা খুব কঠিন । কত ধরনের উপায়ে যে টাকা উপার্জন করা যায় তার ছোট একটা নমুনা তুলে ধরতেই আমার এই লেখা ।

এই নিবন্ধে আমি আপনাদের জন্য বেশ কিছু অল্প পুজিতে লাভজনক ব্যবসা বিষয়ক ধারনা তুলে ধরেছি । একটু কষ্ট করলে এসবের মাধ্যমে আপনি ভালো পরিমান আয় করতে পারবেন বলে আশা রাখি । এছাড়া আপনার চারপাশে তাকান, একটু খেয়াল করুন । প্রতিদিন কতকিছুর পিছনে আপনাকে টাকা খরচ করতে হচ্ছে । আপনিও ঐসব ব্যবসা করে টাকা আয় করতে পারেন । একটু খেয়াল করলেই আপনিও পেয়ে যাবেন অল্প পুজিতে লাভজনক ব্যবসা করার মতো বহু ধারনা । আমাদের লেখাটি ভালো লাগলে শেয়ার করে আমাদের উৎসাহ দেয়ার অনুরোধ রইলো । ধন্যবাদ ।

ট্যাগ গুলো

মতামত যোগ করুন

মতামত দিতে ক্লিক করুন

error: দুঃখিত, অনুলিপি করা যাবে না ! পরে এই কন্টেন্ট প্রয়োজন হলে আপনার সামাজিক অ্যাকাউন্টের সাথে ভাগ করুন।