নিবন্ধ

ইসলামকে সংকীর্ন করে ফেলেছে মুসলমানরাই

আচ্ছা ইসলাম মানে কি ?

ইসলাম ধর্মের উদ্দেশ্য কি ?

কেন নবিজীকে পৃথিবীতে পাঠানো হয়েছে ?

আপনারা কি বলবেন জানিনা তবে আমার মনে হয় ইসলাম আর নবিজীর সবচেয়ে বেশি অবমাননা করছে মুসলমানেরা । বিশেষ করে বর্তমানে যারা ইসলাম প্রচার করে তারাই এর জন্য সবচেয়ে বেশি দায়ি । আমরা সবাই জানি যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বা বুয়েট দেশের সেরা বিদ্যাপীঠ । সারাজিবন এদের অনেক সুনাম শুনেছেন কিন্তু কোন একদিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়ে যদি দেখেন সেখানে ছাত্রদের শিখানো হচ্ছে, অ-তে অজগর, আ-তে আম তাহলে নিশ্চয় আপনারা মাথা ঠিক থাকবেনা । এরকম পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে সেটা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্যও লজ্জার হবে । ঠিক তেমনি আমরা সবাই জানি যে ইসলাম মানবতার মুক্তির ধর্ম, ইসলাম পরিপূর্ন জীবন ব্যবস্থা, নবীজি (সা:) সর্বশ্রেষ্ঠ মানব ইত্যাদি । তবে ইসলাম বিষয়ক কথা উঠলেই যদি দেখি যে বিজ্ঞজনরা দাড়ি-টুপি নিয়ে আলোচনায় ব্যাস্ত তাহলে সেটাও ইসলামের জন্য লজ্জাজনক হবে ।

বর্তমানে জুম্মার খুতবা বা ওয়াজ মাহফিল বা কোন ধর্মিয় আলোচনা শুনলে মনে হয় নবিজীকে পাঠানো হয়েছিলো দাড়ি রাখা শেখানোর জন্য আর প্যান্ট গোড়ালির উপর কিভাবে পড়তে হয় তা শিখানোর জন্য । যে ব্যাক্তি আল্লাহর বন্ধু, যাকে সৃষ্টি না করলে কিছুই সৃষ্টি হতোনা তাকে আল্লাহ দুনিয়াতে পাঠিয়েছেন দাড়ি রাখা আর গোড়ালির উপর প্যান্ট পড়া শিখাতে । আর আমরা তার সেই শিখানো কাজ বাস্তবায়নের চেষ্টা করে যাচ্ছি । ইসলাম হলো পূর্নাঙ্গ জীবন ব্যবস্থা অথচ আমরা জীবনের অন্য সব দিক বাদ দিয়ে সারাদিন খালি এরকম কিছু ছোট বিষয় নিয়ে পরে থাকি । এটা কি নবিজী বা ইসলামের অবমাননা নয় ?

আমাদের সমাজ ব্যবস্থা, অর্থনৈতিক ব্যবস্থা, রাজনৈতিক কৌশল সহ জীবনের বহু বড় বড় দিক নিয়ে আমরা চিন্তা করিনা । আমি যা বোঝাতে চেয়েছি সেটা বোঝাতে পারলাম কিনা জানিনা, তবে আমার মনে হয় আমরা মোস্ট ইমপরটেন্ট জিনিস বাদ দিয়ে লেস ইমপরটেন্ট জিনিস নিয়ে হাউকাউ করছি । মানুষের সামনে অধিক গুরুত্বপূর্ন বিষয় বাদ দিয়ে ছোট ছোট বিষয় তুলে ধরছি আর এসবের প্রচার-প্রসার করতে করতেই আমাদের সময় চলে যাচ্ছে । আমি বলছিনা যে এগুলো শিখতে হবেনা । আমি এটাই বলতে চাই, এগুলোর পিছনে ১ মিনিট সময় ব্যয় করলে গুরুত্বপূর্ন বিষয়গুলোর পিছনে ১ ঘন্টা ব্যয় করা দরকার ছিলো । কেউ যদি মনে করে থাকেন যে, আপনাদের বাড়িতে গান-বাজনা বাজানো হয়না, বাড়ির মেয়েরা বোরকা পরে বাইরে যায় আর আপনিও ৫ ওয়াক্ত নামাজ পড়েন সুতরাং আপনি ইসলাম কায়েম করে ফেলেছেন তাহলে সেটা ভুল । এই দুই-চারটা বিষয় দিয়ে ইসলামকে বিবেচনা করা ভুল হবে

ট্যাগ গুলো
error: দুঃখিত, অনুলিপি করা যাবে না ! পরে এই কন্টেন্ট প্রয়োজন হলে আপনার সামাজিক অ্যাকাউন্টের সাথে ভাগ করুন।