বাংলা সংবাদ

চাপে পরে নিহতের সংখ্যা বাড়িয়ে বলা হয়েছিলো- বাবুনগরি

বাবুনগরি

ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকার বাংলাদেশ প্রতিনিধি রাজু পাটোয়ারিকে গত সপ্তাহে দেয়া হেফাজতে ইসলামের ২য় শীর্ষ ব্যাক্তি হযরত বাবুনগরির সাক্ষাৎকারটির মূল অংশ এখানে পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে ধরা হল –

রাজু- সরকারি খরচে আপনাদের সংগঠনের শীর্ষ পর্যায়ের ৫০ জন এবার হজে যাচ্ছেন, বিষয়টিকে আপনি কিভাবে দেখছেন ?
বাবুনগরি- বিষয়টিকে আমি ইতিবাচক হিসেবেই দেখছি । সরকার বিভিন্ন ইসলামিক কার্যক্রমে সহায়তা করছে যা অবশ্যই ভালো লক্ষ্যন।

রাজু- তবে কি সরকারের সাথে আপনাদের বৈরিতা শেষ হয়ে গিয়েছে বলে ধরে নেব ?
বাবুনগরি- সরকারের সাথে আমাদের কখনই কোন বৈরিতা ছিলোনা । শুধু এই সরকার নয়, বরং বাংলাদেশের সকল সরকার এবং সকল রাজনৈতিক দলের সাথেই আমাদের ভালো সম্পর্ক রয়েছে ।

রাজু- তবুও নিকট অতীতে সরকারের সাথে আপনাদের কিছু রেষারেষির ঘটনা ঘটেছে, এমতাবস্থায় সেই সরকারের টাকায় হজে যাওয়াটাকে জনগন কিভাবে দেখবে বলে মনে করেন ?
বাবুনগরি- জনগন কিভাবে দেখবে সেটা আমাদের বিষয় নয় । আসলে আমি মনে করি এখানে খারাপভাবে দেখার কিছু নেই । আর আরেকটি বিষয় হলো, সরকারের টাকা মানে জনগনের টাকা । তাই বলতে পারেন আমরা সরকারের টাকা নয় বরং জনগনের টাকায় জনগনের প্রতিনিধি হিসেবে হজে যাচ্ছি ।

রাজু- সরকারের সাথে কি আপনাদের সম্পর্কের উন্নয়ন হয়েছে ? আপনাদের এখন আর সরকারের বিরোধিতা করে কিছু বলতে দেখা যায়না কেন ?
বাবুনগরি- আগেই বলেছি সরকারের সাথে আমাদের সম্পর্ক কখনোই খারাপ ছিলোনা । সবসময়ই আমাদের স্বাভাবিক সম্পর্ক রয়েছে । আর সরকার কোন অন্যয় করলে আমরা বিরোধিতা করবো এবং সরকার ভালো কাজ করলে আমরা তাদের পক্ষে থাকবো । এখানে গায়ে পরে বিরোধিতা করা না করার কিছু নেই ।

রাজু– সরকার আপনাদের কাওমি মাদ্রাসার সনদপত্রকে রাষ্ট্রীয়ভাবে স্বীকৃতি দিয়েছে । এবিষয়ে আপনার মতামত কি ?
বাবুনগরি- এজন্য আমি সরকার এবং প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাই । আমরা এজন্য তাদের কাছে কৃতজ্ঞ । প্রধানমন্ত্রী নিজ উদ্যোগে আমাদের সনদপত্রকে মাস্টার্সের সমমানের মূল্য প্রদান করার ব্যবস্থা করেছেন । এজন্য আমরা তার কাছে বিশেষ ভাবে কৃতজ্ঞ । এজন্য আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে কাওমি জননী উপাধি দিয়েছে । এটি সরকারের একটি ভালো সিদ্ধান্ত ।

রাজু- আপনাদের সংগঠন মূলত কাওমি মাদ্রাসার ছাত্র ও শিক্ষকদের নিয়ে গঠিত ও পরিচালিত । কাওমি মাদ্রাসার ছাত্র শিক্ষকদের সাথে সরকারের সংঘর্ষের পর আপনারা সরকারকে নাস্তিক এবং নাস্তিকদের দোসর বলে অভিযুক্ত করেছিলেন । এখন আবার সেই সরকার প্রধানকেই কাওমি জননী উপাধি দিয়েছেন । এটা কি দুমুখো নীতি হয়ে গেলোনা ?
বাবুনগরি- সরকারের সাথে কাওমি পরিবারের কখনো কোন সংঘর্ষ হয়নি । সুতরাং দুমুখো নীতির কোন প্রশ্নই আসেনা । হেফাজতে ইসলাম সবসময় নীতির প্রশ্নে অটল।

রাজু- শাপলা চত্বরে মূলত কাওমি মাদ্রাসার ছাত্ররাই আন্দোলন করেছিলো । আমি শাপলা চত্বরের সংঘর্ষের কথাই বলছি । সেখানে আপনাদের শত শত লোক হতাহত হয়েছে বলে আপনারা অভিযোগ করেছিলেন।
বাবুনগরি- শাপলা চত্বরে সরকার ও আমাদের মাঝে সামান্য ভূল বোঝাবুঝি হয়েছিলো । এটি তেমন গুরুত্বপূর্ন কিছু নয় । আমরা অতীত ভুলে সামনে আগাতে চাই।

রাজু- আপনাদের অভিযোগ অনুযায়ি শত শত কর্মি নিহত ও গুম হওয়ার বিষয়টি গুরুত্বপূর্ন নয় ?
বাবুনগরি- নিহত হওয়ার বিষয়টি অবশ্যই গুরুত্বপূর্ন । সেটি একটি অনাকাংখিত ঘটনা ছিলো । এজন্য সরকার এবং আমাদের উভয়পক্ষেরই কিছু ভুল ছিলো । সরকারও ঐ ঘটনার জন্য দু:খ পেয়েছে ।

রাজু- আপনি বলছেন সরকার ঐ ঘটনার জন্য দু:খ পেয়েছে অথচ সরকার সবসময় বলেছে ঐ ঘটনায় কোন লোক মারা যায়নি। মানুষ নিহত হওয়ার বিষয় নিয়ে আপনারা মিথ্যাচার করেছেন বলে সরকারের দাবি ।
বাবুনগরি- আমরা মিথ্য বলিনি, মানুষ নিহত হওয়ার ঘটনা সত্য । তবে এর জন্য সরকার এবং প্রধানমন্ত্রী দায়ি নয় বলে আমি মনে করি । পুলিশ এবং RAB এর কিছু বেপরোয়া কর্মকর্তা মানুষ হত্যার জন্য দায়ি বলে আমি মনে করি।

রাজু- আপনারা মানুষ হত্যার যে সংখ্যা বলেছেন তা কতটুকু বাস্তব সম্মত বলে আপনার মনে হয় ? আপনারা প্রাথমিকভাবে ৫০ হাজার মানুষ নিহত হওয়ার কথা বলেছিলেন।
বাবুনগরি– এটা ফালতু কথা, আমরা ৫০ হাজার মানুষ নিহত হওয়ার কোন কথা বলিনি । আপনি এই কথা কোথায় শুনেছেন ?

রাজু- তা ঠিক । আপনারা আনুষ্ঠানিক ভাবে “৫০ হাজার” সংখ্যাটি বলেননি তবে অভিযানের রাতে এবং ভোরে প্রথমদিকে ৫০ হাজার মানুষ নিহত হয়েছে বলে ফেসবুকে গুজব ছড়িয়েছিলো । যারা এসব প্রচার করেছে তারা সবাই আপনাদের সমর্থক ছিলো । প্রথমে ৫০হাজার, তারপর ১০হাজার, তারপর ৫হাজার, তারপর ৫০০, তারপর ৩০০ এবং সর্বশেষে বেশ অনেকদিন পরে ৬৩ জনের তালিকা আপনারা দিয়েছিলেন।
বাবুনগরি- আমাদের দেয়া তালিকা সঠিক । আমরা যাচাই বাছাই করেই তালিকা দিয়েছি । তবে ৫০ হাজার নিহত হওয়ার কথা আমরা বলিনি । ফেসবুকে কেউ গুজব ছড়ালে সেটা আমাদের দোষ নয়।

রাজু– ফেসবুকের গুজবের জন্য আপনাদের দায়ি করছিনা তবে সেই ৬৩ জনের নিহত হওয়ার সত্যতাও পাওয়া যায়নি । আপনাদের দেয়া তালিকার অনেককেই পরবর্তীতে জীবত অবস্থায় পাওয়া গেছে।
বাবুনগরি- আমরা যাচাই বাছাই করেই তালিকা দিয়েছি । আমাদের তালিকার ভিতর থেকে কাউকে জীবিত পাওয়া যায়নি । এটা মিথ্যা কথা ।

রাজু- বেশ কয়েকজনকেই জীবিত পাওয়া গিয়েছে। এবিষয়ে কয়েকটি টিভি চ্যানেল ও পত্রিকার কাছে প্রমান আছে । তারা এটা নিয়ে প্রতিবেদনও দেখিয়েছিলো । আর যাচাই বাছাই করে ৬৩ জনের কথা পাওয়া গেলে ৫০০/১০০০ লোকের কথা কেন বলা হয়েছিলো ?
বাবুনগরি– ৫০০/১০০০ লোকের কথা আমি কখনো বলিনি । এসব অন্যরা বলেছে। সেখানে আমার কিছু করার নেই।

রাজু- অন্য কেউ যদি মিথ্যাচার করে তবে সেটা শুনেও আপনি চুপ থাকবেন ? আর আপনি বা শফি সাহেব বলেননি বলে সেটার গ্রহনযোগ্যতা নেই ? তাহলে কি আপনাদের সংগঠনে আপনি এবং শফি সাহেব ছাড়া অন্যদের কোন মূল্য নেই ?
বাবুনগরি- আমাদের সংগঠনে সবারই মূল্য আছে । আসলে চাপে পরে নিহতের সংখ্যা বাড়িয়ে বলা হয়েছিলো । আমাদের কাছে সঠিক তথ্য ছিলোনা ।

রাজু- কারা সংখ্যা বাড়িয়ে বলতে চাপ দিয়েছিলো ? বিএনপি বা জামায়াত কি আপনাদের এমন করতে চাপ দিয়েছিলো ? শোনা যায় বিএনপি জামাতের সাথে আপনাদের ঘনিষ্ট সম্পর্ক রয়েছে।
বাবুনগরি- না তারা আমাদের এমন কোন চাপ দেয়নি। তাদের সাথে আমাদের কোন ঘনিষ্ট সম্পর্ক নেই । দেশের অন্য সব রাজনৈতিক দলের সাথে যেমন সম্পর্ক, তাদের সাথেও তেমনই সম্পর্ক ।

রাজু- আপনাদের সংগঠনের কি রাজনীতিতে যুক্ত হওয়ার পরিকল্পনা আছে ?
বাবুনগরি- না, রাজনীতিতে যুক্ত হওয়ার কোন ইচ্ছা নেই ।

রাজু- বিভিন্ন স্থানিয় নির্বাচনে আপনাদের সংগঠনের অনেক নেতাকে ক্ষমতাসীন দলের পক্ষে কাজ করতে দেখা যায়।
বাবুনগরি– এটা তাদের ব্যক্তিগত বিষয়।

রাজু- গত নির্বাচনে সরকার অবৈধভাবে হস্তক্ষেপ করেছে বলে অনেকের অভিযোগ রয়েছে । এটা নিয়ে আপনাদের কোন প্রতিবাদ নেই কেন ?
বাবুনগরি– রাজনৈতিক বিষয় নিয়ে আমরা কিছু বলতে চাইনা । এটা রাজনীতিবিদদের বিষয়।

রাজু- আপনাদের সংগঠনের আয়ের উৎস কি ? আপনারা কি সরকার বা অন্য কোন রাজনৈতিক দলের কাছ থেকে টাকা নিয়ে থাকেন ?
বাবুনগরি- কোন রাজনৈতিক দলের কাছ থেকে আমাদের টাকা নেয়ার প্রয়োজন নেই । আমরা যথেষ্ট স্বচ্ছল । ছাত্রদের বেতন, কোরবানির চামড়া, যাকাতের টাকা এবং বিভিন্ন ব্যাক্তি আমাদের যে টাকা দান করেন তাতেই আমাদের হয়ে যায়।

রাজু- আপনারা প্রায়ই বলেন, টাকার অভাবে বহু গরিব ও এতিম ছাত্র ছাত্রী ঠিকমত খাবার পায়না, সুযোগ সুবিধা পায়না । অথচ আপনি বললেন আপনারা যথেষ্ট স্বচ্ছল। আপনারা যে টাকা পান তাতেই হয়ে যায়।
বাবুনগরি- আমাদের যতটুকু টাকা আছে তার ভিতরেই আমরা চলার চেষ্টা করি, অপচয় করিনা । এতেই আমরা খুশি । তবে আরো বেশি টাকা পেলে ভালো হতো কারন আমরা গরিব ও এতিম ছাত্রদের টাকার অভাবে যথেষ্ট ভালো খাবার এবং সুযোগ সুবিধা দিতে পারিনা ইচ্ছা থাকা সত্বেও। তাই এবিষয়ে সমাজের বিত্তবানদের সহায়তা চাই।

রাজু- আপনারা যথেষ্ট টাকার অভাবে এতিম ছাত্রদের ঠিকমতো খাবার দিতে পারেননা অথচ বিভিন্ন ওয়াজ মাহফিলে বিশাল প্যান্ডেল ও লাইটিং করতে প্রচুর টাকা খরচ করেন । এমনকি আহমদ শফি সাহেব এবং আপনাদের আরো বেশ কয়েকজন নেতা বিভিন্ন স্থানে হেলিকাপ্টার দিয়ে যাতায়াত করেন । যদিও তাদের ব্যক্তিগত ভাবে এত অর্থ সম্পদ নেই। হেলিকাপ্টার ভাড়া করার টাকা তারা কোথায় পান ? একঘন্টার জন্য হেলিকাপ্টার ভাড়া করতেও লাখ টাকা প্রয়োজন হয়।
বাবুনগরি– ছাত্র ছাত্রিরা এবং প্রতিষ্ঠানের কর্মিরা ভালোবেসে সেচ্ছায় হুজুরদের এই অর্থ প্রদান করে। আমরা চেষ্টা করি অর্থের অপচয় কমাতে এবং কম খরচে সব কিছুর আয়োজন করতে । এছাড়া এজন্য আমাদের আলাদা ফান্ড রয়েছে । সেখান থেকে এগুলোর খরচ দেয়া হয় । তাই ছাত্রদের উপর এর কোন চাপ পরেনা ।

রাজু- কাওমি মাদ্রাসার শিক্ষার মান নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে । ঐসবের পিছনে টাকা খরচ না করে শিক্ষার মান উন্নয়নে টাকা খরচ করলেকি সেটা ভালো হতোনা ?
বাবুনগরি- কাওমি মাদ্রাসার শিক্ষার মান নিয়ে কোন প্রশ্ন নেই । কাওমি মাদ্রাসার শিক্ষা ব্যবস্থা অন্যসব স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসার চাইতে ভালো। আমাদের ছাত্ররা যথেষ্ট মেধাবি ।

রাজু- কাওমি মাদ্রাসাগুলোর শিক্ষা ব্যবস্থা আরো উন্নত করার কোন চিন্তাভাবনা আছে কি?
বাবুনগরি- হা, আমরা সবসময় আরো ভালো ও উন্নত শিক্ষা প্রদানের জন্য কাজ করে যাচ্ছি ।

রাজু- বর্তমানে সারা দেশে কাওমি মাদ্রাসার সংখ্যা কত ?
বাবুনগরি- বর্তমানে দেশে হাজার হাজার কাওমি মাদ্রাসা রয়েছে। কাওমি মাদ্রাসার প্রতি মানুষের আগ্রহ বৃদ্ধি পাচ্ছে।

রাজু- হাজার হাজার বলে কত বোঝাতে চাচ্ছেন ? প্রকৃত সংখ্যাটা কত হতে পারে ?
বাবুনগরি- সঠিক সংখ্যা আমার জানা নেই । তবে ১০০০০- ১৫০০০ হতে পারে।

ট্যাগ গুলো

মতামত যোগ করুন

মতামত দিতে ক্লিক করুন

error: দুঃখিত, অনুলিপি করা যাবে না ! পরে এই কন্টেন্ট প্রয়োজন হলে আপনার সামাজিক অ্যাকাউন্টের সাথে ভাগ করুন।