নিবন্ধ

পুরুষের সন্তান জন্মদান ক্ষমতা নষ্ট হয় যেসব কারনে

মানসিক হতাশা

সন্তান মানুষের জীবনে একটি অন্যতম শ্রেষ্ঠ নিয়ামত। বিবাহিত জীবনে সময়মতো সন্তান জন্ম না হলে মানসিক পরিস্থিতি কি হয় তা হয়তো শুধু ভুক্তভোগিরাই জানে। সন্তান জন্ম দিতে অক্ষম হলে জীবনটাই হতাশাময় হয়ে যায়। এক সময় মনে করা হতো সন্তান জন্ম দিতে না পারার জন্য শুধু মেয়েরাই দায়ি। তবে পরে জানা যায় সন্তান না জন্মানোর জন্য মেয়েদের পাশাপাশি ছেলেদেরও দায়ভার থাকতে পারে। জলবায়ু পরিবর্তন, খাদ্যাভাস সহ ছোট-বড় বিভিন্ন কারনে দিন দিন সন্তান জন্মদানে ছেলেদের অক্ষমতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। আপনার কাছে যেটা সামান্য বিষয় মনে হচ্ছে অঘটন ঘটার জন্য একসময় সেটাই বড় কারন হয়ে দাড়াতে পারে। কি কি কারনে পুরুষের সন্তান জন্মদানে অক্ষমতা সৃষ্টি হতে পারে তার কয়েকটি এখানে তুলে ধরা হলো। জানুন, সচেতন হোন।

তৈলাক্ত খাবার: তৈলাক্ত খাবার পুরুষের সন্তান জন্ম দেয়ার ক্ষমতাকে অনেকটাই ক্ষতিগ্রস্থ করে। অতিরিক্ত তেল শরীরে বাড়তি চর্বি সৃষ্টি করে যা রক্তনালীকে সংকুচিত করে ফেলে এবং শুক্রানুর উৎপাদন কমিয়ে দেয়। এর ফলে সন্তান জন্ম দেয়ার ক্ষমতা কমে যায়। সুতরাং অতিরিক্ত তৈলাক্ত খাবার সবসময় এড়িয়ে চলুন।

উপুড় হয়ে ঘুমানো: উপুর হয়ে ঘুমানো ঠিক নয়। উপুর হয়ে ঘুমালে লিংগ ও তলপেটের উপর চাপ পরে এবং চাপা পরে থাকা অংশে

গরম পানিতে গোসল করা: গরম পানিতে গোসল করতে আরাম লাগলেও এটি সন্তান জন্মদান ক্ষমতাকে হ্রাস করে দিতে পারে! গরম পানি দিয়ে গোসল না করে স্বাভাবিক তাপমাত্রার পানি দিয়ে গোসল করা উচিত।

মোবাইল ব্যবহার: মোবাইল ব্যবহার পুরুষের সন্তান জন্মদান ক্ষমতা কমিয়ে দেয়। মূলত মোবাইল থেকে নির্গত রেডিয়েশনই এর জন্য দায়ি।

ল্যাপটপ ব্যবহার: কোলের উপর রেখে ল্যাপটপ ব্যবহার করলে এর বিকিরন এবং তাপের ফলে ছেলেদের সন্তান জন্মদানের ক্ষমতা ক্ষতিগ্রস্থ হয় বলে জানিয়েছেন গবেষকরা। তাই কোলের উপর রেখে ল্যাপটপ ব্যবহার না করাই উত্তম।

আটসাঁট পোশাক পরিধান: আটসাঁট পোশাক পরিধান করাও গ্রীষ্ম প্রধান অন্চলগুলোর মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। কিছুটা ঢিলেঢালা এবং বাতাস চলাচল করতে পারে এমন পোষাক পরিধান করুন।

গরম আবহাওয়া: গরম আবহাওয়া পুরুষের শুক্রানুর জন্য ক্ষতিকর। গরম আবহাওয়ার ফলে ছেলেদের শুক্রানুর মান নষ্ট হয়ে যায় বা কমে যায়। তাই গরম পরিবেশে কাজ করার ক্ষেত্রে কিছুটা সতর্ক থাকা উচিত। শরীরের তাপমাত্রা যেন স্বাভাবিক থাকে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

ধূমপান: ধূমপানের ক্ষতিকর দিক অনেক। ধূমপান করলে শুধু হৃদরোগ বা ক্যান্সারই হয়না, এর সাথে এটি যৌন ক্ষমতা এবং ছেলে ও মেয়ে উভয়েরই সন্তান জন্মদানের ক্ষমতাও কমিয়ে দেয়। সুতরাং ধূমপান থেকে দুরে থাকুন।

কোমল পানীয় পান: কোমল পানীয় শরীরের স্থুলতা বৃদ্ধি এবং রক্তের কার্যক্ষমতা কমিয়ে দেয়। ফলে এটি শুধু যৌন ক্ষমতা কমিয়েই দেয়না বরং আরো অনেক ক্ষতি করে। তাই কোমল পানীয় পান করা হতে বিরত থাকুন।

কৃত্রিম যৌন উত্তেজন ঔষধ সেবন: যৌন উত্তেজক ঔষধগুলো কিছু সময়ের জন্য যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধি করলেও শেষ পর্যন্ত ক্ষতির কারন হয়ে দাড়ায়। এসব ঔষুধের কারনে কিছু সময়ের জন্য হয়তো যৌন ক্ষমতা ঠিকই বৃদ্ধি পায় কিন্তু পরবর্তিতে দেখা যায় যে সেই ঔষুধ সেবন না করলে যৌন উত্তেজনা সৃষ্টি হয়না। এর একসময় পরিস্থিতি এমন হয়ে ওঠে যে ঔষুধ খেয়েও তখন আর কাজে দেয়ান। ফলে চিরদিনের মতো নিজের যৌন ক্ষমতা নষ্ট হয়ে যায়।

পুষ্টিকর খাবার না খাওয়া: প্রয়োজনীয় পরিমান পুষ্টিকর খাবার না খেলে তা শরীরে অন্যসব সমস্যা সৃষ্টির পাশাপাশি সন্তান জন্মদানের ক্ষেত্রেও সমস্যা সৃষ্টি করে থাকে। পুরুষদের শরীরে পর্যাপ্ত পরিমান গুনগত মানসম্পন্ন বীর্য উৎপাদনের জন্য নিয়মিত ভালো ও পুষ্টিকর খাবার খাওয়া উচিত।
কোন কোন খাবার খেলে পুরুষদের সন্তান জন্মদান ক্ষমতা বৃদ্ধি পায় তা জানতে এখানে ক্লিক করুন।

অতিরিক্ত যৌনমিলন: অতিরিক্ত যৌনমিলন করলে বীর্য উৎপাদন হয়ে কুলিয়ে উঠতে পারেনা। বীর্য পাতলা হয়ে যায় এবং শুক্রানু কমে যায়। তাই অতিরিক্ত যৌন মিলন করা থেকে বিরত থাকুন।

হস্তমৈথুন: হস্তমৈথুন একটি বদঅভ্যাস। হস্তমৈথুন করলে যৌনাঙ্গের স্পর্শকাতরতা কমে যাওয়ার পাশাপাশি বীর্য পাতলা হয়ে যায় এবং শুক্রানুর পরিমান কমে যায়। ফলে বাবা হতে না পারার ঝুকি বৃদ্ধি পায়। তাই হস্তমৈথুন থেকে দুরে থাকুন।

আপনি এটি পড়তে পারেন

পুরুষের সন্তান জন্মদান ক্ষমতা বৃদ্ধি করে যেসব খাবার

উপরের বিষয়বস্তু গুলো দেখে এখন নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন যেসব ছোটখাটো বিষয়গুলোকে আমরা পাত্তাই দেইনা সেগুলোও বড় ক্ষতির কারন হয়ে দাড়াতে পারে। তাই উপরিউক্ত বিষয়গুলো এড়িয়ে চলুন এবং কোন সমস্যা দেখা দিলে ভালো চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহন করুন।

ট্যাগ গুলো

মতামত যোগ করুন

মতামত দিতে ক্লিক করুন

error: দুঃখিত, অনুলিপি করা যাবে না ! পরে এই কন্টেন্ট প্রয়োজন হলে আপনার সামাজিক অ্যাকাউন্টের সাথে ভাগ করুন।