নিবন্ধ

মোটা হওয়ার সহজ উপায়

মোটা হওয়ার সহজ উপায়

মোটা হওয়ার সহজ উপায় নিয়ে এই লেখায় আলোচনা করা হয়েছে । এইখানে আমরা বেশ কিছু মোটা হওয়ার সহজ উপায় তুলে ধরেছি যা আপনার কাজে লাগবে । তবে এখানে শুধুমাত্র ঘরোয়া পদ্ধতিতে প্রাকৃতিক ভাবে মোটা হওয়ার সহজ উপায় সমুহ তুলে ধরা হয়েছে । কোন কৃত্রিম উপায় বা ঔষুধ খেয়ে মোটা হওয়া স্বাস্থের জন্য ঠিক নয় ।

একটা সময় ছিলো যখন মানুষ শুধু চিকন হতে চাইতো । চিকন হওয়াকেই সৌন্দর্য মনে করতো । তবে সেই সময় বুঝি এবার শেষ হতে চলেছে । মানুষ এখন বুঝতে পারছে যে শুধু চিকন হতে হতে শরীরের হাড় দেখা যাওয়া মানেই সৌন্দর্য বা সুস্বাস্থ্য নয় বরং শরীরের কাঠামো এবং উচ্চতা অনুযায়ি মাংস, চর্বি ও ওজন থাকাটাই হলো সৌন্দর্য এবং এভাবেই সুস্থ থাকা সম্ভব । চলুন তবে আর কথা না বাড়িয়ে শুরু করা যাক ।

ঘরোয়াভাবে মোটা হওয়ার সহজ উপায় –

* প্রয়োজনের চেয়ে একটু কম ঘুমান । আপনি ঘুমালে কারো ডাক ছাড়া কতক্ষন পরে আপনার ঘুম ভাংগে সেটা খেয়াল করুন । এটাই আপনার স্বাভাবিক ঘুমের সময় । এই স্বাভাবিক সময়ের চাইতে একটু কম ঘুমান । যেমন ধরুন আপনার স্বাভাবিক ঘুমের সময় যদি ৮ ঘন্টা হয় তাহলে আপনি সাড়ে সাত ঘন্টা ঘুমাবেন । কম ঘুমালে শরীরে হরমোনের কিছুটা পরিবর্তন হয় ফলে ওজন কিছুটা বেড়ে যায় । তবে খুব বেশি কম ঘুমানো উচিত নয় । কারন এর ফলে শরীরে দূর্বলতা ও রোগ দেখা দিতে পারে ।

* প্রতিদিন হালকা ব্যয়াম করুন । ভাবছেন ব্যয়াম করলে মোটা হওয়ার বদলে উল্টো চিকন হয়ে যাবেন ? এটা সম্পূর্ন ভূল ধারনা । প্রতিদিন হালকা ব্যয়াম করাটা হলো একটি অন্যতম মোটা হওয়ার সহজ উপায় । ব্যয়াম করলে শরীরের অতিরিক্ত চর্বি গলে যায় কিন্তু শরীরে নতুন কোষ তৈরি হয় এবং পাশাপাশি মাংসপেশী কিছুটা ফুলে ওঠে । তাই মোটা হওয়ার জন্য ব্যয়াম করাটা খুবই গুরুত্বপূর্ন । এছাড়া ব্যয়াম করলে পরিশ্রম হয় তাই ক্ষুদাও কিছুটা বেশি লাগে । আপনি তখন নিজের অজান্তেই কিছুটা বেশি খাওয়া শুরু করবেন ফলে শরীরে নতুন কোষ তৈরি হবে । তবে খুব বেশি বা কঠিন ব্যয়াম করার দরকার নেই । কারন বেশি ব্যয়াম করলে আপনি চিকন হতে শুরু করবেন তাই হালকা ব্যয়ামই যথেষ্ট ।

* খাবার গ্রহনের পরিমান বাড়িয়ে দিন । এই পক্রিয়াটি আমরা সবাই জানি । বেশি পরিমানে খাবার খেলে শরীরে নতুন কোষ তৈরি হয় এবং পাশাপাশি অতিরিক্ত খাবার চর্বি হিসেবে জমা থাকে । ফলে এই পক্রিয়ায় সহজেই মোটা হওয়া যায় ।

* দুশ্চিন্তা মুক্ত থাকুন । দুশ্চিন্তা করার ফলে মস্তিষ্কের পাশাপাশি শরীরে চাপ পরে । ফলে শরীর দ্রুত শুকিয়ে যায় । তাই স্বাস্থ্য ভালো রাখতে চাইলে দুশ্চিন্তা করা বন্ধ করুন ।

* দীর্ঘ সময় শুয়ে-বসে কাটান । দ্রুত মোটা হতে চাইলে দিনের অধিকাংশ সময় শুয়ে এবং বসে কাটান । এতে করে শরীর বিশ্রামে থাকর ফলে অতিরিক্ত চর্বি জমা হবে এবং আপনিও দ্রুত মোটা হতে পারবেন । তবে সারাদিন শুয়ে, বসে কাটালে শরীরে অলসতা ভর করতে পারে যা আপনার ক্ষতির কারন হয়ে দাড়াতে পারে ।

মোটা হওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় খাবার সমূহের তালিকা –

যে সকল খাবার খেলে শরীর মোটা হতে সহায়তা করে সেগুলোর একটি সংক্ষিপ্ত তালিকা আমরা আপনাদের জন্য এখানে তুলে ধরেছি –

আলু – আলু একটি শর্করা সমৃদ্ধ স্বল্প মূল্যের খাবার । আলুতে এমন কিছু উপাদান রয়েছে যা আপনাকে দ্রুত মোটা হতে সাহায্য করবে । বেশি পরিমানে আলু খাওয়া হলো মোটা হওয়ার সহজ উপায় । তাই মোটা হতে চাইলে বেশি করে আলু খান ।

ভাত – ভাতেও রয়েছে প্রচুর পরিমানে শর্করা ও ফ্যাট । রুটি বা আটা জাতীয় খাবার না খেয়ে বেশি করে ভাত খেলে তা আপনাকে দ্রুত মোটা হতে সহায়তা করবে ।

ভাতের ফ্যান/মাড় – ভাতের ফ্যান বা মাড় খেলে তা আপনাকে দ্রুত মোটা হতে সাহায্য করবে এবং পাশাপাশি এতে রয়েছে প্রচুর পরিমান পুষ্টি । সাধারনত আমরা ভাতের মাড় ফেলে দেই কিন্তু যখন আমরা ভাত রান্না করি তখন চাল সিদ্ধ হয়ে চালের অধিকাংশ পুষ্টি উপাদানই এই পানিতে মিশে যায় । মূলত ভাতের চাইতে ভাতের মাড়েই বেশি পুষ্টি থাকে !

ডিম – ডিমে রয়েছে প্রচুর পরিমান আমিষ, শর্করা ও প্রোটিন । সুতরাং মোটা হতে চাইলে নিয়মিত ডিম খান । তবে আমাদের দেশে কিছু মানুষ কাচা ডিমে শক্তি বেশি ভেবে কাচা ডিম খেয়ে থাকে যা সম্পূর্ন ভূল ধারনা । ডিম কাচা খেলে শক্তি না বেড়ে বরং আপনি জীবানু দ্বারা আক্রান্ত হতে পারেন ।

চিনি মিশ্রিত খাবার – চিনি মানুষকে মোটা হতে সাহায্য করে তাই মোটা হতে চাইলে চিনি মিশ্রিত খাবার গ্রহন করুন । তবে অতিরিক্ত চিনি জাতীয় খাবার খেলে তা হৃদরোগ সহ বিভিন্ন রোগ সৃষ্টি করতে পারে । তাই অতিরিক্ত চিনি জাতীয় খাবার গ্রহনের ক্ষেত্রে সচেতন থাকুন ।

বাদাম ও কিসমিস – বাদাম ও কিসমিস মোটা হওয়ার ক্ষেত্রে ভালো ভূমিকা পালন করে । প্রতিদিন সকালে অল্প পরিমানে বাদাম ও কিসমিস খেলে ভালো উপকার পাবেন বলে আশা রাখি ।

শাক- সবজি – পেপে, মিষ্টি কুমড়া, কাচা কলা ইত্যাদি শাক সবজি বেশি পরিমানে খান । এসব শাক সবজি বেশি পরিমানে খেলে শরীরের ওজন বৃদ্ধি পাবে ।

গরুর মাংস – মোটা হতে চাইলে বেশি করে গরুর মাংস খান । বেশি পরিমানে গরুর মাংস খাওয়াটা হলো মোটা হওয়ার সহজ উপায় । দ্রুত নিজের ওজন বৃদ্ধি করতে চাইলে/ মোটা হতে চাইলে নিয়মিত বেশি পরিমানে গরুর মাংস খান । এটি আপনাকে দ্রুত মোটা হতে সাহায্য করবে ।

বেশি তেলের খাবার – যে সকল খাবারে তেল বেশি দিয়ে রান্না করা হয় এমন খাবার বেশি গ্রহন করুন অথবা নিয়মিত খাবারগুলোতেই তেল একটু বেশি দিয়ে রান্না করুন । তেল জাতীয় খাবার শরীরকে দ্রুত মোটা করে তুলতে সাহায্য করে ।

কোমল পানীয় – কোমল পানিয় দ্রুত আপনার শরীরকে মোটা করে তুলবে । তাই মোটা হতে চাইলে বেশি পরিমানে কোমল পানিয় পান করুন । তবে এটাও জেনে রাখা উচিত যে, অতিরিক্ত পরিমান কোমল পানীয় পান করা শরীরের জন্য ভালো নয় ।

ফাস্ট ফুড – ফাস্ট ফুড মানুষের শরীরকে দ্রুত মোটা করে তোলে । তাই মোটা হতে চাইলে পুরি, সিংগারা, পিৎজা, বার্গার সহ বিভিন্ন ফাস্ট ফুড খাবার পরিমান বাড়িয়ে দিন । এটি আপনাকে দ্রুত মোটা করে তুলবে ।

দুধ – বেশি করে দুধ খেলে তা মোটা হওয়ার জন্য গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করে থাকে । সুতরাং মোটা হতে চাইলে নিয়মিত দুধ পান করুন ।

মাখন – মাখনে এমন কিছু উপাদান রয়েছে যা নিয়মিত খেলে শরীরকে মোটা হতে সাহায্য করে । তাই বেশি পরিমানে মাখান খান ।

ঘি – ঘি-ও শরীরকে দ্রুত মোটা হতে সাহায্য করে । তাই দ্রুত মোটা হতে চাইলে ঘি দিয়ে রান্না করা খাবার বেশি করে খান ।

এখানে আমরা আপনাদের জন্য ঘরোয়া ভাবে বেশ কিছু মোটা হওয়ার সহজ উপায় তুলে ধরেছি । কৃত্রিম ভাবে ঔষুধ খেয়ে বা ইনজেকশন দিয়ে মোটা হওয়ার মতো ভয়ংকর উপায় অবলম্বন না করে আমাদের উল্লেখিত উপায়গুলো অবলম্বন করলে আপনি শারীরিক ভাগে ক্ষতিগ্রস্থ না হয়ে দ্রুত মোটা হতে পারবেন বলে আশা করি ।

ট্যাগ গুলো

মতামত যোগ করুন

মতামত দিতে ক্লিক করুন

error: দুঃখিত, অনুলিপি করা যাবে না ! পরে এই কন্টেন্ট প্রয়োজন হলে আপনার সামাজিক অ্যাকাউন্টের সাথে ভাগ করুন।