নিবন্ধ

ডিমের ভাত ভাজা: এক অতি সহজ কিন্তু দারুন মজার খাবার!

ডিমের ভাত ভাজা , ফ্রাইড রাইস

ডিমের ভাত ভাজা আমার খুবই প্রিয় একটি খাবার। ছোটবেলা থেকেই আমি এর একনিষ্ঠ ভক্ত । ডিমের ভাত ভাজা পেলে আমার আর কিছু লাগেনা, একাই ৫ প্লেট সাবার করে দেই । ছোটবেলা থেকেই আমার মা আমাকে ডিম দিয়ে ভাত ভেজে দিতেন, পরে আমি নিজেই মায়ের কাছ থেকে রেসেপিটি শিখে নেই । ডিমের ভাত ভাজার রন্ধন প্রনালী শিখতে গিয়ে দেখলাম এটি একদমই সহজ আর অল্প সময়ের ব্যাপার । তাই ভাবলাম আপনাদেরও জানিয়ে দেই । অনেকেই হয়তো আগে থেকেই জানেন, কারন এটি অনেকের বাসাতেই রান্না হয়। তবে যারা জানেন না তাদের জন্য এখানে তুলে ধরছি ।

উপকরন:

(আমার মতে, ১টি ডিম দিয়ে ২প্লেট ভাত বেশ সুন্দর ভাবেই ভাজা যায় এবং ২জন মানুষের জন্য সেটা যথেষ্ট। তাই আমি এখানে ২প্লেট ভাত ও ১টি ডিমের হিসাব ধরে সব কিছু উল্লেখ করছি। আপনি আপনার প্রয়োজন মতো বাড়িয়ে কমিয়ে নিতে পারেন)

ভাত ২ প্লেট
ডিম ১টি
পেয়াজ মাঝারি আকারের ৩টি
টমেটো ছোট আকারের ১টি (টমেটো না দিলেও চলে, তবে দিলে স্বাদ এবং পুষ্টি বাড়বে, কিন্তু বড় সাইজের বা বেশি টমেটো দেয়ার প্রয়োজন নেই । টমেটো বেশি হয়ে গেলে টক টক লাগতে পারে তাই ২প্লেট ভাতের জন্য ছোট একটি টমেটোই যথেষ্ঠ।
মটরশুটি আধা কাপ (এটাও টমেটোর মতো । না দিলেও চলবে তবে স্বাদ ও পুষ্টি বাড়ানোর জন্য দিতে পারেন। সেক্ষেত্রে মটরশুটি আগেই সেদ্ধ করে নিতে হবে। আধা কাপ মটরশুটি সেদ্ধ করা ৫মিনিটের ব্যাপার)
কাচা মরিচ ৩/৪টি
তেল ২টি ডিম ভাজতে যেটুকু তেল প্রয়োজন ততটুকু
লবন পরিমান মতো

ডিমের ভাত ভাজা (রন্ধন প্রনালী):

প্রথমে পেয়াজ, মরিচ কুচি কুচি করে এবং টমেটো ছোট ছোট করে কেটে নিন । মটরশুটি দিলে তা সিদ্ধ করে নিন । এরপর চুলায় ২টি ডিম ভাজতে যে পরিমান তেল লাগে ততটুকু তেল দিন । গরম তেলে পেয়াজ কুচি দিয়ে অল্প একটু ভাজুন । এরপর তাতে অল্প একটু লবন দিয়ে মরিচ, টমেটো, মটরশুটি ঢেলে দিয়ে আরো সামান্য কিছুক্ষন ভাজুন । এরপর এগুলোর উপর ডিম ছেড়ে দিয়ে নাড়ে চেড়ে ডিমটিকে ভাজতে ভাজতে গুড়ো গুড়ো করে দিন ।

তারপর এর উপর ভাতগুলো দিয়ে নেড়ে চেড়ে সবকিছু ভালোমতো মিশিয়ে দিন এবং নুডুলসে যেভাবে টেস্টিং সল্ট দিয়ে থাকেন সেভাবে একটু একটু করে লবন দিয়ে নাড়তে নাড়তে মিশিয়ে দিন । প্রয়োজনে একটু মুখে দিয়ে দেখে নিতে পারেন যে লবন পরিমান মতো হয়েছে কিনা। তারপর সামান্য আচে ভাজতে থাকুন । ভাত ভাজা হয়ে আসলে দেখবেন পট পট করে শব্দ হবে । তখন বুঝবেন নিচের ভাতগুলো ভাজা হয়েছে । তখন আবার উল্টিয়ে পাল্টিয়ে অন্যপাশের ভাতগুলো নিচের দিকে দিয়ে দিন । তারপর যখন সেগুলোও ভাজা হয়ে যাবে তখন চুলা থেকে নামিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন ।

সাধারনত দেখা যায় ভাত কিছুটা বাসি হয়ে গেলে বা একবেলার ভাত পরের বেলায় ঠান্ডা হয়ে গেলে সেগুলো দিয়েই ডিমের ভাত ভাজা তৈরি করা হয় । খুবই সহজ কিন্তু অত্যান্ত মজাদার এই ডিমের ভাত ভাজা একবার খেয়ে দেখুন । আশা করি ভালোই লাগবে ।

মতামত যোগ করুন

মতামত দিতে ক্লিক করুন

error: দুঃখিত, অনুলিপি করা যাবে না ! পরে এই কন্টেন্ট প্রয়োজন হলে আপনার সামাজিক অ্যাকাউন্টের সাথে ভাগ করুন।